আন্তর্জাতিক 

খরচ কমাতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট সফরের সময় ইমরান খান থাকবেন পাক রাষ্ট্রদূতের বাংলোয়

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : দেশের আর্থিক অবস্থা খুবই খারাপ । এই পরিস্থিতিতে খরচ কমানোয় পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের একমাত্র লক্ষ্য । তাই মন্ত্রী-আমলাদের খরচে রাশ টেনেই নয় , এবার খোদ নিজের খরচেও রাশ টানতে চলেছেন ইমরান খান । আগামী ২১ জুলাই তিনি তিনদিনের সফরে আমেরিকা যাচ্ছেন ।কিন্তু কাঁড়ি কাঁড়ি টাকা খরচ করে বিলাসবহুল হোটেলে থাকার পরিবর্তে, সেখানে পাক রাষ্ট্রদূতের বাসভবনে থাকার সিদ্ধান্ত নিলেন তিনি। সরকারি টাকার অপচয় রুখতেই তিনি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে সোমবার পাক সংবাদমাধ্যমের তরফে জানানো হয়েছে।

বর্তমানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পাকিস্তানি রাষ্ট্রদূত হিসাবে নিযুক্ত রয়েছেন আসাদ মজিদ খান। ওয়াশিংটন ডিসিতে তাঁর বাসভবনেই থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ইমরান খান। যদিও পাক প্রধানমন্ত্রী এই সিদ্ধান্ত মনঃপুত হয়নি মার্কিন সিক্রেট সার্ভিস এবং ওয়াশিংটন ডিসির প্রশাসনিক কর্তাদের।

সারা বছর বিশ্বের বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রনেতা ওয়াশিংটন সফরে যান। সে দেশের মাটিতে পা রাখার সঙ্গে সঙ্গেই সেখানে তাঁদের নিরাপত্তা সংক্রান্ত যাবতীয় দায়িত্ব বর্তায় মার্কিন সিক্রেট সার্ভিসের উপরেই। আবার ওই রাষ্ট্রনেতাদের আগমনে শহরে যানজট সংক্রান্ত সমস্যা যাতে না দেখা দেয়, স্থানীয় মানুষের রোজকার জীবনে যাতে প্রভাব না পড়ে, যৌথ ভাবে সেই দায়িত্ব সামলায় যুক্তরাষ্ট্রীয় সরকার এবং স্থানীয় প্রশাসন।

সরকারি টাকার অপচয় রুখতে এর আগেও একাধিক গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ইমরান খান। ক্ষমতায় এসে প্রথমেই মন্ত্রীআমলাদের জন্য বরাদ্দ খাবারের পরিমাণে কাটছাঁট করেন তিনি। গত বছর আবার ফার্স্টক্লাসে চেপে মন্ত্রীদের বিমান সফর নিয়েও আপত্তি তোলেন। দেশের মধ্যে হোক বা বিদেশে, সরকারের টাকায় ফার্স্টক্লাসে চেপে ঘোরা যাবে না বলে সাফ জানিয়ে দেন তিনি। প্রেসিডেন্ট হোন বা প্রধানমন্ত্রী অথবা গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রী সকলকেই বিজনেস ক্লাসে যাত্রা করার নির্দেশ দেন।

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment