দেশ 

গভীর সংকটে কর্ণাটকের কুমারস্বামী সরকার , সরকার বাঁচাতে ইস্তফা সব মন্ত্রীর ; আগামী কলের মধ্যে সমাধান সূত্র বের হবে বলে প্রত্যাশা করছেন জোটের নেতারা

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : জোট সরকার বাঁচাতে মরিয়া চেষ্টা চালাচ্ছে কংগ্রেস-জেডিএস । আজ মুখ্যমন্ত্রী বাদে সব মন্ত্রী ইস্তফা দিয়েছেন বলে জানা গেছে । ইস্তফা দেননি শুধু মুখ্যমন্ত্রী এইচ ডি কুমারস্বামী। তাঁর নেতৃত্বে খুব শীঘ্রই নয়া মন্ত্রিসভা গঠন করা হবে বলে সোমবার দুপুরে টুইট করে জানায় মুখ্যমন্ত্রীর দফতর।

এ দিন সোমবার  সকালে কংগ্রেস সিদ্ধান্ত নেয় তাদের দলের সব মন্ত্রী পদত্যাগ করবেন । এমনকি উপ-মুখ্যমন্ত্রীও পদত্যাগ করবেন । সেইমত প্রথমে কংগ্রেসের ২১ জন মন্ত্রী ইস্তফা দেন। যে ভাবেই হোক সরকার বাঁচাতেই হবে— রাজ্যের রাজনৈতিক সঙ্কটের মধ্যে দাঁড়িয়ে এখন এটাই মূল লক্ষ্য হয়ে দাঁড়িয়েছে কংগ্রেস-জেডিএস-এর কাছে। আশু সমাধান বার করতে দিল্লিতে কংগ্রেসের শীর্ষ নেতৃত্ব বৈঠকে বসবেন সন্ধ্যাবেলায়। অন্য দিকে, এই সঙ্কট কাটাতে নিজেদের মতো করে আটঘাট বাঁধছেন জেডিএস-এর শীর্ষ নেতৃত্বও। সূত্রের খবর, এই সঙ্কটের সময় কোনও রকম ঝুঁকি নিতে চাইছেন না কুমারস্বামী। বিজেপি ঘোড়া কেনাবেচা করতে পারে এই আশহ্কা করেই  বিধায়কদের কুর্গে নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করছেন তিনি।

এ দিন দুপুরে সাংবাদিক সম্মেলন করে কংগ্রেস নেতা কে সি বেণুগোপাল বলেন, “যে সব বিধায়ক ইস্তফা দিয়েছেন, আশা করব তাঁরা দলকে মজবুত করতে তাঁরা ফিরে আসবেন। এই সঙ্কটময় পরিস্থিতিতে তাঁরা দলের পাশে থাকবেন।” গত শনিবারে ইস্তফা দিয়েছিলেন  কংগ্রেস ও জেডিএস-এর মোট ১৩ জন বিধায়ক। তাঁদের বুঝিয়ে দলে ফিরিয়ে আনার প্রয়াস চলাকালীন সোমবার সকালেইইস্তফা দেন রাজ্যেরই এক মন্ত্রী তথা নির্দল বিধায়ক নাগেশ। কর্নাটকের প্রাক্তন মন্ত্রী রামলিঙ্গ

নির্দল বিধায়ক নাগেশের ইস্তফা প্রসঙ্গে শিবকুমার বলেন, “চাপে পড়েই ইস্তফা দিয়েছেন নাগেশ। মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে তিনি কথা বলেছেন। আমরা ওঁর সঙ্গে সর্বক্ষণ যোগাযোগ রাখছি।” এ দিকে, কংগ্রেস ও জেডিএস-এর যে সকল বিধায়ক মুম্বইয়ের হোটেলে উঠেছেন, তাঁদের উপর কড়া নজরদারিও শুরু হয়ে গিয়েছে। হোটেলের বাইরে বেরোতে নিষেধ করা হয়েছে বিধায়কদের। বিজেপি যাতে ঘোড়া কেনাবেচা করতে না পারে জোর কদমে সেই প্রচেষ্টাও  চালিয়ে যাচ্ছেন কুমারস্বামী।

সোমবার সংসদে কর্নাটকের প্রসঙ্গ উঠলে কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিংহও বলেন, “বিজেপির বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলা ঠিক নয়। কর্নাটকের এই ঘটনার সঙ্গে বিজেপি কোনও ভাবেই জড়িত নয়।” এই ঘটনার জন্য পাল্টা তিনি রাহুলকেই দুষেছেন। এদিকে সংকটের খবর পেয়ে তড়িঘড়ি আমেরিকা থেকে ফিরে আসেন মুখ্যমন্ত্রী কুমারস্বামী । অন্যদিকে কংগ্রেস দলও আজই বৈঠকে বসে কর্ণাটকের উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করবে । আশা করা হচ্ছে আজ কিংবা আগামী কালের মধ্যে স্পষ্ট হয়ে যাবে জোট সরকার টিকবে কিনা ।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment