কলকাতা 

‘‘বাড়ি বাড়ি যান, মানুষের সুখ-দুঃখের কথা শুনুন,লড়াই করুন, একুশে ঘুরে দাঁড়াব…একুশে আমরা ফিরে আসব।’’ : মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : বাঁকুড়া ঝাড়গ্রামের তৃণমূল নেতাদের শুক্রবার ভোকাল টনিকে চাঙ্গা করার চেষ্টা করলেন তৃণমূল চেয়ারপার্সন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তৃণমূল ঘুরে দাঁড়াবে এবং ২০২১ সালে তৃণমূলই ফিরে আসবেমন্তব্য নেত্রীর। তৃণমূল সূত্রের খবর, জনসংযোগ বাড়ানোর কথা   দিন বার বার বলেছেন তিনি। তবে দলেরই কেউ কেউ বিজেপির হয়ে কাজ করেছেনবিজেপির কাছ থেকে টাকা নিয়েছেন বলেও দিন তিনি মন্তব্য করেছেন।

বিজেপির বিরুদ্ধে সর্বশক্তি দিয়ে ঝাঁপানোর বার্তা দিয়ে নেত্রীর মন্তব্য: ‘‘লড়াই করুন, একুশে (২০২১ সালে) ঘুরে দাঁড়াবএকুশে আমরা ফিরে আসব।’’ তৃণমূল সূত্রের খবর, জনসংযোগের ঘাটতি নিয়ে মমতা দিন নানা ভাবে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন। ভোট পর্যন্ত বাঁকুড়া জেলা তৃণমূলের সভাপতি যিনি ছিলেন, সেই অরূপ খাঁ, বাঁকুড়া জেলা পরিষদের সভাধিপতি অরূপ চক্রবর্তী, বাঁকুড়া সদরের বিধায়ক শম্পা দরিপা এবং বাঁকুড়া পুরসভার চেয়ারম্যান মহাপ্রসাদ সেনগুপ্ত দিন মমতার ভর্ৎসনার মুখে পড়েন বলে খবর। ভোটে খারাপ ফলাফলের জন্যই মূলত এই ভর্ৎসনা। মানুষের অনুভূতি, মানুষের দুঃখের কথা শোনা হয়নি, অগ্রাহ্য করা হয়েছেমমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দিনের বৈঠকে এই রকম পর্যবেক্ষণই প্রকাশ করেছেন বলে জানা গিয়েছে। অরূপ খাঁ, অরূপ, চক্রবর্তী, শম্পা দরিপাদের তিনি দিন নির্দেশ দেন, প্রশাসনের সঙ্গে যোগাযোগ কমিয়ে দলের কাজ করতে। রাজনৈতিক লড়াই করুন, কিন্তু কোনও সংঘর্ষে জড়াবেন নাদলকে এই বার্তাও মমতা দিয়েছেন বলে খবর।

বাঁকুড়া পুর এলাকায় দলের অভ্যন্তরীণ অশান্তি নিয়ে যে তিনি অসন্তুষ্ট, তা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দিনের বৈঠকে বুঝিয়ে দেন বলে খবর। বিধায়ক শম্পা দরিপাকে সঙ্গে নিয়ে কাজ করতে হবেপুরসভার চেয়ারম্যান মহাপ্রসাদ সেনগুপ্তকে এই বার্তাই দিয়েছেন তৃণমূলনেত্রী। আর বিষ্ণুপুরের শ্যাম মুখোপাধ্যায়কে তিনি শুভেন্দু অধিকারীর সঙ্গে যোগাযোগ রেখে চলতে বলেছেন।

ঝাড়গ্রাম জেলা তৃণমূলের সভানেত্রী বীরবাহা সরেনকে দিন মমতা নির্দেশ দিয়েছেন প্রাক্তন সাংসদ উমা সরেনকে জেলা তৃণমূলের কোর কমিটিতে সামিল করে নিতে। উমাকে সঙ্গে নিয়ে কাজ করতে বলেছেন। ঝাড়গ্রামের পরাজয় অল্প ব্যবধানে এবং এক শ্রেণির নেতা জনবিচ্ছিন্ন না হয়ে পড়লে সেটাও হত নানেত্রীর পর্যবেক্ষণ এই রকমই। কাজ অনেকটাই করা হয়েছে, কিন্তু ঝাড়গ্রামে তথা জঙ্গলমহলে তফসিলি জাতি জনজাতির কাছে যে ভাবে পৌঁছনো উচিত ছিল দলের তরফ থেকে, তা হয়নিমমতার মত এই রকমই। তবে সব কিছুর ঊর্ধ্বে যে জনসংযোগ এবং তাতে যে জোর দিতেই হবে, সে কথা মমতা দিন বার বার মনে করিয়ে দিয়েছেন। ‘‘বাড়ি বাড়ি যান, মানুষের সুখদুঃখের কথা শুনুন, জল খান, সরকারি প্রকল্পের সুবিধা পেয়েছে কি না, খবর নিন।’’ দলের জেলা নেতৃত্বকে দিন এই রকম নির্দেশই দিয়েছেন তৃণমূলনেত্রী।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment