কলকাতা 

‘‘পৃথিবীর সবাইকে ভালবেসে যে ধর্ম, সেটাই আসল ধর্ম, সেটাই মানব ধর্ম। সেই ধর্মের জয় হোক, শুভবুদ্ধির জয় হোক, সম্প্রীতির জয় হোক, ঐক্যের জয় হোক মানবতার জয় হোক “ ইসকনের রথযাত্রার সূচনা করে বার্তা মমতার

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : রথযাত্রাকে ঘিরে রাজনীতি চোখে পড়ল । আজ মধ্য কলকাতার হাঙ্গারফোর্ড স্ট্রিটে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যখন ইসকনের রথযাত্রার উদ্বোধন ; প্রায় একই সময় উত্তর কলকাতার মহাজাতি সদনে কাছে রথযাত্রার উদ্বোধন করছেন বিজেপি নেতা মুকুল রায় । প্রায় এক দশক পর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ছাড়াও অন্য কোনো দলের রাজনীতিবিদকে রথযাত্রা উদ্বোধন করতে দেখা গেল । বামেরা ক্ষমতায় থাকার সময় ধর্মীয় অনুষ্ঠান থেকে দূরে থাকতেন । তাদের কোনো নেতাকে রথযাত্রার উদ্বোধন করতে দেখা যায়নি । কিন্ত মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ক্ষমতায় আসার আগে থেকেই ইসকনের রথযাত্রাতে সামিল হতেন এবং উদ্বোধন করতেন ।

এদিনের অনুষ্ঠানে আর একজন আমন্ত্রিত ছিলেন তিনি হলেন বসিরহাটের সাংসদ নুসরাত জাহান । রথযাত্রার সূচনা করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন ,  ‘‘জগন্নাথ দেব সবাইকে ভাল রাখুন। ধর্ম মানে সর্বজনীন, ধর্ম মানে বিশ্বজনীন। সারা পৃথিবীর সবাইকে ভালবেসে যে ধর্ম, সেটাই আসল ধর্ম, সেটাই মানব ধর্ম। সেই ধর্মের জয় হোক, শুভবুদ্ধির জয় হোক, সম্প্রীতির জয় হোক, ঐক্যের জয় হোক। মানবতার জয় হোক। জয় শ্রীরাম স্লোগান নিয়ে বিজেপি-তৃণমূল সংঘাত চলছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং তাঁর দলের অবস্থান, তাঁরা জয় শ্রীরাম বলবেন না। এ দিনও রথযাত্রার সূচনা পর্বের শেষে মমতার মুখে শোনা গিয়েছে, ‘জয় জগন্নাথ’, ‘জয় হিন্দ’, ‘জয় বাংলা’ স্লোগান।

আর বৃহস্পতিবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে অনুষ্ঠানে সর্বক্ষণ ছিলেন নুসরত। বসিরহাটের সাংসদ বলেন, ‘‘আমাকে আমন্ত্রণ জানানোয় গর্ব বোধ করছি। পশ্চিমবঙ্গে জাতি ভেদাভেদ ভুলে সব উৎসবই আমরা একসঙ্গে পালন করি। এটাই আমাদের ঐতিহ্য। বাংলা সম্প্রীতি এবং শান্তির প্রতীক। প্রার্থনা করব, আমরা যেন সবাই ভাল ভাবে থাকতে পারি।এত সুন্দর একটা অনুষ্ঠান। আসুন আমরা সবাই মিলে এই অনুষ্ঠান পালন করি।’’ বক্তব্যের শেষে ‘জয় জগন্নাথ’ ধ্বনিও দেন নুসরত।

 

 

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment