দেশ 

আগামী আর্থিক বছরে জিডিপি বৃদ্ধির হার ৭ শতাংশ হবে ;সমীক্ষা রিপোর্টে দাবি

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক :  দেশের আর্থিক অবস্থা আগামী বছর ভাল হবে বলে অর্থনৈতিক সমীক্ষায় উঠে এসেছে । বৃহস্পতিবার সংসদে প্রাক-বাজেটের আর্থিক সমীক্ষা রিপোর্ট প্রকাশ করা হয় । সেই রিপোর্টেই এই দাবি করা হয়েছে । শুক্রবার কেন্দ্রীয় বাজেট প্রস্তাব লোকসভায় পেশ হওয়ার প্রাক মুহূর্তে।

অর্থনৈতিক সমীক্ষা (২০১৮-’১৯ অর্থবর্ষ) জানাল, আন্তর্জাতিক বাজারে অপরিশোধিত তেলের দাম কমবে উল্লেখযোগ্য ভাবে। ফলে, তেল আমদানির ‘হাতির বোঝা’ অনেকটাই কমবে। ‌যার জেরে দেশে পেট্রল, ডিজেল ও অন্যান্য জ্বালানির দাম কমতে পারে। তবে বাড়বে জিডিপি বৃদ্ধির হার।

সমীক্ষার অনুমান, ২০২০ অর্থবর্ষের শেষে দেশের জিডিপি বৃদ্ধির হার গিয়ে পৌঁছবে ৭ শতাংশে। উল্লেখযোগ্য ভাবে বাড়বে বেসরকারি বিনিয়োগের হারও। বাড়বে ক্রেতাবাজার। মানুষের ক্রয়ক্ষমতা। আর কমবে রাজস্ব ঘাটতির পরিমাণ।

বৃহস্পতিবার লোকসভায় অর্থনৈতিক সমীক্ষা পেশ করেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন। ওই সমীক্ষা প্রণয়নের মূল দায়িত্বে ছিলেন মুখ্য অর্থনৈতিক উপদেষ্টা কৃষ্ণমূর্তি সুব্রমনিয়ন। পরে কেন্দ্রীয় অর্থ মন্ত্রকের ওয়েবসাইট থেকে সংশ্লিষ্ট একটি লিঙ্ক তুলে ধরে বৃহস্পতিবার টুইট করেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। তাতে তিনি লেখেন, ‘‘২০১৯ এর অর্থনৈতিক সমীক্ষা আমাদের কাছে একটি দৃষ্টিভঙ্গির রূপরেখা তৈরি করে দিয়েছে ভারতকে ৫ লক্ষ কোটি ডলার অর্থনীতির দেশ হিসাবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে। এটি সামাজিক ক্ষেত্রে অগ্রগতি, প্রযুক্তি গ্রহণ এবং শক্তির নিরাপত্তা ক্ষেত্র থেকে লাভগুলিও তুলে ধরেছে।পড়ুন সেগুলি!’’

সমীক্ষা রিপোর্ট যাই বলুক না কেন ? জিডিপি হার এতটা বৃদ্ধি হবে কিনা তা নিয়ে অর্থনীতিবিদরা সন্দিহান । বলা যেতে পারে প্রতি বছরেই আর্থিক সমীক্ষা রিপোর্ট সংসদে পেশ করার সময় জিডিপি হার বৃদ্ধি নিয়ে বলা হয় ঠিকই কিন্ত বছর শেষে সেই বৃদ্ধি চোখে পড়ে না । এই সমীক্ষা রিপোর্টে সবটাই অনুমানের উপর নির্ভর করা হয়েছে । বলা হয়েছে আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম কমবে । কিন্ত সেটা নির্ভর করছে বাজারের উপর । ( সৌজন্যে ডিজিটাল আনন্দবাজার )


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment