কলকাতা 

মমতা সরকারকে জাতীয় স্তরে কাজের নিরিখে আবারও সেরার স্বীকৃতি দিল মোদী সরকার

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : আবার সাফল্য । মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারের একের এক জাতীয় স্তরে শিরোপা পেয়ে চলেছে । রাজ্য সরকারগুলি কাজের নিরিখে যে মূল্যায়ন কেন্দ্র সরকার করে থাকে তাতেই স্বীকৃতি আদায় করে চলেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । এবার তপশিলি জাতির উন্নয়নের দিক থেকে জাতীয় স্তরে সেরার স্বীকৃতি আদায় করে নিল মোদী সরকারের কাছ থেকে । মোদী সরকারের সবচেয়ে বিরোধী হওয়া সত্ত্বে যেভাবে তিনি নিজের কাজের মধ্য দিয়ে স্বীকৃতি আদায় করেছেন তা অন্য রাজ্যগুলির মুখ্যমন্ত্রীদের কাছে নজীর হয়ে থাকবে ।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজেই টুইট করে জানিয়েছেন সে কথা। টুইটে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় লিখেছেন- ফের সেরার শিরোপা পেল বাংলা। বাংলার মাথায় আরও একটা পালক জুড়ল। ২০১৭-১৮ অর্থবর্ষে তফশিলি উন্নয়নে সেরার পুরস্কার পেল বাংলা।

এদিন তিনি সমস্ত দলের তফশিলি জাতি ও উপজাতিভুক্ত বিধায়কদের সঙ্গে বৈঠকে বসেছিলেন নবান্নে। এদিনের বৈঠকে উন্নয়নমূলক কাজকর্মের খতিয়ান নেন তিনি। তারপরই তিনি এই সুখবর দেন। আর সবথেকে তাৎপর্যপূর্ণ বিষয়, তফশিলি উন্নয়নে রাজ্য যখন সেরার শিরোপা পাচ্ছে, তখন তফশিলি জাতিভুক্ত এলাকাতেই এবার লোকসভায় ধাক্কা খেয়েছে তৃণমূল।

এবারের লোকসভা ভোটে রাজ্যজুড়ে তৃণমূল কংগ্রেসের ভরাডুবি হয়েছে তফশিলি জাতি ও উপজাতি এলাকায়। তফশিলি জাতি ও উপজাতি এলাকার মানুষের মধ্যে মমতার জনপ্রিয়তা কমেছে, এই হার সেই বার্তাই দেয়। সেই কারণেই তিনি এবার তফশিলি জাতি-উপজাতি এলাকায় নিজে নজর দিতে চান। বিধায়কদের নিয়ে বৈঠকে বসার সেটাই প্রধান উদ্দেশ্য। রাজ্যে শাসক তৃণমূলের চ্যালেঞ্জার হয়ে উঠেছে বিজেপি। তা সম্ভব হয়েছে, এই তফশিলি জাতি ও উপজাতি মানুষদের জন্য।

আর সেই পরিস্থিতিতে তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাতে তুরুপের তাস হয়ে উঠবে তফশিলি জাতি ও উপজাতি এলাকায় উন্নয়নে সেরার মর্যাদা পাওয়া। জাতীয় স্তরের এই সেরার খেতাব প্রাপ্তি অবশ্যই অ্যাডভান্টেজ মমতার।

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment