দেশ 

আধিকারিক পিটিয়েও জামিন পেয়ে বিধায়ক আকাশকে ঘিরে উল্লাস বিজেপি সমর্থকদের , সমালোচনায় মুখর মধ্যপ্রদেশ কংগ্রেস

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : বাবা হলেন কৈলাস বিজয়বর্গীয় তার ছেলে আকাশ বিজয়বর্গীয় । বাবা জুতো দিয়ে মেরে ছিলেন আর ছেলে মেরেছেন ব্যাট দিয়ে । প্রথমবার বিধায়ক প্রভাবশালী বিজেপি নেতার পুত্র হওয়ার পরও তাঁর বিরুদ্ধে খারাপ ব্যবহারের তেমন কোনো নজীর নেই । তবু কয়েকদিন আগে ইন্দোরে বেআইনি নির্মাণ ভাঙতে গেলে পুর আধিকারিককে এই তরুণ বিজেপি বিধায়কের হাতে আক্রান্ত হন । পুর আধিকারিককে ব্যাট দিয়ে পেটানোর ছবি সোস্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে যায় । তারই প্রেক্ষিতে তাঁকে গ্রেফতার করে মধ্যপ্রদেশে কংগ্রেস পরিচালিত পুলিশ । তিন দিন জেলে থাকার পর শনিবার তিনি জামিন পান । রবিবার সকালে জেল থেকে মুক্তি পেয়েছেন ।

আজ জামিনে মুক্তি পাওয়ার পর জেলের সামনেই তাঁকে মালা পরিয়ে কার্যত বীরের মর্যাদা দিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। আনন্দের আতিশয্যে বিজেপি অফিসের সামনে শূন্যে গুলি ছুড়ে দলীয় বিধায়কের মুক্তি উদযাপন করা হয়। আর ইনদওরের বিজেপি বিধায়কের মন্তব্য, ‘জেলে খুব ভাল সময় কাটিয়েছি’। সরকারি আধিকারিককে পিটিয়ে জেল খাটার পরও এ ভাবে উৎসবের মেজাজে বরণ করা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে মধ্যপ্রদেশ কংগ্রেস।

গত ২৬ জুন পুর আধিকারিককে পেটানোর ঘটনায় ওই দিনই গ্রেফতার হন ইনদওর-৩ কেন্দ্রের বিজেপি বিধায়ক আকাশ বিজয়বর্গীয়। তিন দিন হাজতবাসের পর গতকাল, শনিবারই তাঁর জামিন মঞ্জুর করে ইনদওরের বিশেষ আদালত। রবিবার জেল থেকে ছাড়া পান আকাশ। জেল থেকে বেরিয়ে তিনি বলেন, “জেলে খুব ভাল সময় কেটেছে। এলাকার মানুষের ভালর জন্য কাজ করেই যাব।’’

আকাশ জেলের বাইরে বেরোতেই তাঁরা ফুলের মালা পরিয়ে তাঁকে বরণ করে নেন। স্লোগান-মিছিলে ইনদওর বিজেপি পার্টি অফিসে পৌঁছন আকাশ। সেখানে ছিল কার্যত উৎসবের মেজাজ। তাসা-ব্যান্ডপার্টির তালে নাচে মেতে ওঠেন সমর্থকরা। তার মধ্যেই এক জনকে শূন্যে পরপর পাঁচ-ছ’টি গুলি ছুড়তে দেখা যায়।

পুর আধিকারিককে ব্যাট দিয়ে পেটানোর ঘটনার পরই কড়া নিন্দা করেছিল মধ্যপ্রদেশের শাসক দল কংগ্রেস। এ দিন মুক্তির পর তাঁকে নিয়ে উদ্দীপনা দেখে কটাক্ষ করতে ছাড়েননি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। কমল নাথের খোঁচা, “ক্রিকেট ব্যাট দেশের জয়ের প্রতীক হওয়া উচিত, গণতন্ত্রের পরাজয়ের নয়।”


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment