কলকাতা 

তিলজলায় যুবক খুনে গ্রেফতার বান্ধবী

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : ভালবেসে ঘর ছেড়ে অন্যত্র থাকতে শুরু করেছিল ইয়াসির । বেকবাগানের বাড়ি ছেড়ে সে তিলজলায় ভাড়া বাড়িতে বান্ধবী শালিনী চক্রবর্তীকে নিয়ে থাকত । গত ২৮ মে থেকে সে ভাড়া বাড়িতে থাকতে শুরু করে । আর মাত্র এক মাস না যেতেই আত্মহত্যা করল ইয়াসির । কারণ কী তা নিয়ে ধন্দে পুলিশ । ময়না তদন্তের রিপোর্টে আত্মহত্যা বলা হয়েছে । তবে কী কারণে ঘর ছেড়ে চলে যাওয়া একজন আত্মহত্যা করলেন তা নিয়ে তদন্ত করছে লালবাজার ।

এদিকে ইয়াসিরের আত্মীয়দের অীভযোগের ভিত্তিতে গ্রেফতার করা হয়েছে বান্ধবী শালিনী চক্রবর্তীকে । তাঁর বিরুদ্ধে আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগে মামলা শুরু করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার ধৃতকে আলিপুর আদালতে তোলা হলে বিচারক ৮ জুলাই পর্যন্ত পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দেন।

ঘটনার পরেই শালিনীকে আটক করে জেরা শুরু করে পুলিশ। তদন্তকারীরা জানান, তাঁর কথায় একাধিক অসঙ্গতি মিলেছে। শালিনী পুলিশকে জানিয়েছেন, বুধবার সকাল ছ’টা নাগাদ পাশের ঘরে ইয়াসিরকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখেন তিনি। এর পরে দেহটি তিনিই নীচে নামান। কিন্তু পুলিশ মৃত যুবকের মোবাইলের কললিস্ট ঘেঁটে জানতে পারে, ওই দিনই সকাল সাতটায় ইয়াসির তাঁর এক বন্ধুর সঙ্গে কথা বলেছিলেন।

মৃতের কাকা মহম্মদ এহসানের অভিযোগ, ‘‘ইশাক নামে শালিনীর প্রাক্তন এক বন্ধু দিন তিনেক ধরে ইয়াসিরকে হুমকি দিচ্ছিল। আমরা পুলিশকে সে বিষয়টি জানিয়ে তদন্ত করতে বলেছি। আমাদের দাবি, ভাইপো কখনও আত্মহত্যা করতে পারে না। ওকে খুন করে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে।’’ পুলিশ ইশাক নামে ওই তরুণের খোঁজ শুরু করেছে। জেরায় ধৃত জানিয়েছে, ঘটনার দিন ভোরে ইয়াসিরের সঙ্গে তাঁর ঝগড়া হয়। তার পরেই ইয়াসির পাশের ঘরে চলে যান। পুলিশ জানিয়েছে, এন্টালির বাসিন্দা শালিনীর সঙ্গে মাস কয়েক আগে হোয়াটসঅ্যাপে ইয়াসিরের আলাপ হয়। গত মাস থেকে তিলজলা রোডের ওই ফ্ল্যাটটি ভাড়া নেন তিনি। ইয়াসিরের ভাই আসাদ ইকবালের অভিযোগ, ‘‘দাদাকে পরিকল্পিত ভাবে খুন করা হয়েছে। ওই মহিলার জন্য ভাই বাড়ি ছেড়ে ভাড়া থাকত। পুলিশ ঘটনার তদন্ত করুক।’’

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment