প্রচ্ছদ 

মাদ্রাসায় নিয়োগে অগ্রাধিকার পাবে পরিচালন সমিতি আজ জানাল সুপ্রিম কোর্ট

শেয়ার করুন
  • 134
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বিশেষ প্রতিনিধিঃ আজ দেশের শীর্ষ আদালত সংখ্যালঘুদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিচালনা করার সাংবিধানিক মামলায় এক ঐতিহাসিক সামঞ্জস্যপূর্ণ আদেশ প্রদান করেছে।সবোর্চ্চ আদালত আজ বলেছে,পশ্চিমবাংলার সরকার অনুমোদিত ও সাহায্যপ্রাপ্ত মাদ্রাসাগুলির পরিচালন সমিতি ইচ্ছা করলে মাদ্রাসা সাভির্স কমিশনের প্যানেল থেকে শিক্ষক  নিতে পারবে। আর যেসব পরিচালন সমিতি সাভির্স কমিশন থেকে শিক্ষক নিতে চাইবে না তারা পশ্চিমবঙ্গ মাদ্রাসা শিক্ষা দফতর থেকে জারি করা ৩মার্চ ২০১৬-র নোটিফিকেশন অনুযায়ী শিক্ষক নিয়োগ করতে পারবে।উল্লেখ্য,মাদ্রাসাগুলিকে বাম সরকার ২০০৮ সালে এক আদেশনামা জারি করে সংখ্যালঘু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মর্যাদা দেয়।আর মাদ্রাসাগুলিতে নিয়োগের জন্য আলাদা মাদ্রাসা সাভির্স কমিশন গঠন করে। মাদ্রাসা সাভির্স কমিশনের বৈধতা নিয়ে কাঁথি রহমানিয়া হাইমাদ্রাসার পরিচালন সমিতি মামলা করে। সেই মামলায় ২০১৪ সালে হাইকো্র্টের সিঙ্গল বেঞ্চ মাদ্রাসায় সাভির্স কমিশনকে অবৈধ এবং অসাংবিধানিক বলে কমিশনের অস্তিত্বকে বাতিল করে। এরপর ২০১৫ সালে হাইকো্র্টের প্রধানবিচারপতির নেতৃত্বাধীন ডিভিসন বেঞ্চও সিঙ্গল বেঞ্চের রায়কেই বহাল রাখেন। পরবর্তীকালে সুপ্রিম কো্র্টে আবেদন করা হয়,শীর্ষ আদালতে এই মামলার শুনানী এখন চলছে। মাদ্রাসা এডুকেশন ফোরাম নামে এক সংগঠন মাদ্রাসা সাভির্স কমিশনের মাধ্যমে শিক্ষক নিয়োগ করার দাবি করে সুপ্রিম কো্র্টে আবেদন করার পরিপ্রেক্ষিতে কয়েক বছর ধরে শুনানী চলছে। এদিকে শিক্ষকের অভাবে মাদ্রাসাগুলি কার্যত উঠে যেতে বসেছে। ফলে দ্রুত মামলার নিস্পত্তির দাবি জানিয়ে ১৪৮ টি মাদ্রাসার পরিচালন সমিতি শীর্ষ আদালতের দ্বারস্থ হয়।

এই সব মাদ্রাসার পরিচালন সমিতি শীর্ষ আদালতে দাবি করে দ্রুত শিক্ষক নিয়োগ করার অনুমতি দিক আদালত,সেই পরিস্থিতিতে আজ আদালত জানিয়ে দিয়েছে,রাজ্য সরকার পরিচালিত মাদ্রাসা সাভির্স কমিশনের  প্যানেল থেকে যদি কোন পরিচালন সমিতি শিক্ষক নিতে চায় তাহলে তারা নিতে পারে। কিন্ত কমিশন কিংবা সরকার কোন মাদ্রাসাকে জোর করে কমিশনের প্যানেল থেকে শিক্ষক নিয়োগ করাতে পারবে না। আর যারা সাভির্স কমিশন থেকে শিক্ষক নিতে চাইবে না তারা মাদ্রসা শিক্ষা দফতরের জারি করা ৩মার্চ ২০১৬-র নোটিফিকেশন অনুসারে শিক্ষক নিয়োগ করতে পারবে। তবে সব নিয়োগই নির্ভর করবে আদালতের চূড়ান্ত রায়ের উপর। আগামী ১২জুলাই আবার শুনানী হবে। এদিকে সাংবিধানিক অধিকার নিয়ে মামলাকারী আইনজীবী আবু সোহেল বলেন,শীর্ষ আদালত আজ যে আদেশ দিয়েছে তাতে আমাদেরই নৈতিক জয় হয়েছে। মাদ্রাসা পরিচালন সমিতিই সিদ্ধান্ত নেবে তারা কমিশনের প্যানেল থেকে শিক্ষক নেবে না নিজেরা সরকারের নির্দেশিকা মেনে শিক্ষক নিয়োগ করবে। বল এখন পরিচালন সমিতিরই কোর্ট-এ।


শেয়ার করুন
  • 134
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment