জেলা 

দুই রাজনৈতিক দলের ক্ষমতা দখলের লড়াইয়ে অশান্ত ভাটপাড়া-কাঁকিনাড়া অর্পণা সেনদের কাছে অভিযোগ স্থানীয় মানুষদের

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : উত্তর ২৪ পরগণার ভাটপাড়া-কাঁকিনাড়ায় অশান্তির নেপথ্যে দুই রাজনৈতিক দলের ক্ষমতা দখলের লড়াইকে দায়ী বলে বিশিষ্টজন মন্তব্য করলেন । বৃহস্পতিবার অর্পণা সেন , কৌশিক সেন , চন্দন সেনসহ প্রমুখ বিশিষ্ট নাগরিক সমাজ ভাটপাড়া যান । সেখানে গিয়ে দুই সম্প্রদায় মানুষের সঙ্গে কথা বলেন বিশিষ্ট নাগরিকরা। সাধারন মানুষের সঙ্গে কথা বলার পর তাঁরা দেখা করেন ব্যারাকপুরে পুলিশ কমিশনার মনোজ বর্মার সঙ্গে । পুলিশ কমিশনারকে এলাকায় শান্তি-শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনা এবং মানুষের মনে আস্থা ফিরিয়ে আনার অনুরোধ করেন ।

পরে সাংবাদিকদের কাছে অর্পণা সেন বলেন , এলাকার মানুষ শান্তি চায় । তারা অশান্তি চাইছেন । এখানকার মানুষ কেউ দুই সম্প্রদায়ের মধ্যে কাউকে দায়ী করেনি । বরং তারা সবাই বলছে দুই রাজনৈতিক দল তৃণমূল এবং বিজেপি এই অশান্তির জন্য দায়ী করছে । এখানকার অবস্থা এমন যে মানুষ কথা বলতে ভয় পাচ্ছেন । তিনি ক্ষোভের সঙ্গে বলেন মানুষের অভিযোগ হল ক্ষমতা দখলে রাজনৈতিক দলগুলি শকুনের খেয়োখেয়ি করছে তার জন্যই শান্তি ফিরছে না ।

অর্পণা সেন আরও বলেন , আমি মুসলিম মেয়েদের সঙ্গে কথা বলেছি তাদের বক্তব্য হল , রমযান মাসে সেহরি খেয়ে তারা শুয়েছেন এমন সময় হঠাৎ হামলা হয় । সেই ১৯ মে শুরু হয়েছে হামলা তা এখনও বন্ধ হয়নি । সেই হামলার সময় দুস্কৃতিরা সকলেই পুলিশের পোশাক পড়ে মুখে কালো কাপড় বেধে হামলা করে ।

বিশিষ্ট চলচিত্র নির্মাতা অর্পণা সেন আরও বলেন , আমরা পুলিশ কমিশনারকে এ বিষয়ে বলেছি । তিনি আশ্বাস দিয়েছেন কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে । প্রয়োজন হলে সিসিটিভি লাগানো । সিসিটিভি দেখে গ্রেফতার করা হচ্ছে । তিনি দাবি করেন , এলাকার মানুষ বলছে , বর্তমান পুলিশ কমিশনার মনোজ বর্মার হাত ধরে এলাকায় শান্তি ফিরছে ।

অন্যদিকে বিশিষ্ট অভিনেতা কৌশিক সেন বলেন , আমরা সাধারন মানুষ কথা বলেছি । তাদের অভিযোগ গুলি কমিশনার মনোজ বর্মাকে জানিয়েছি । এরপর আমরা রাজ্যপাল ও মুখ্যমন্ত্রীকে জানাব । আমরা পুলিশ কমিশনারকে অনুরোধ করেছি রাজনৈতিক দল নয় , বরং প্রশাসনই এগিয়ে এসে শান্তি প্রচেষ্টায় বিশেষ ভূমিকা নিক । প্রয়োজন সেই আলোচনায় আমরা থাকতে প্রস্তুত ।

 

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment