দেশ 

কৈলাস বিজয়বর্গীয় বিধায়ক পুত্রের ‘গুন্ডাগিরি‘ সরকারি আধিকারিককে ব্যাট দিয়ে পিটিয়ে গ্রেফতার , সরগরম রাজ্য রাজনীতি

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : বিজেপি বিধায়ক কেন্দ্রে ক্ষমতাসীন দলের নেতা এবং বাবা বিজেপির কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারন সম্পাদকও বটে । এহেন এক জন প্রতাপশালীর ব্যক্তি সঙ্গে পুরসভার আধিকারিক তর্ক করছে তা মানা যায় না । অতএব সাংবাদিকদের সামনে বীরত্ব দেখালেন মধ্যপ্রদেশের বিজেপি বিধায়ক ও কৈলাস বিজয়বর্গীর পুত্র আকাশ বিজয়বর্গীয় ।বুধবার এই ঘটনাটি ঘটে ইন্দোরে।

জবরদখল কারীদের তুলতে গিয়েছিলেন মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশনের ওই আধিকারিক। সেই সময়েই বিজেপি বিধায়ক আকাশের সঙ্গে তাঁর কথা কাটাকাটি হয়। ওই আধিকারিককে শাসাতেও দেখা যায় আকাশকে। পাঁচ মিনিটের মধ্যে সেখান থেকে চলে না গেলে পরের ঘটনার দায় ওই আধিকারিককেই নিতে হবে — এমন কথাও বলতে শোনা যায় আকাশকে।

এর পরই আধিকারিকের দিকে ব্যাট নিয়ে তেড়ে যান কৈলাস বিজয়বর্গীয়র ছেলে। বেশ কয়েক ঘা মারতেও দেখা যায় তাঁকে। গোটা ঘটনাটি সাংবাদিকদের ক্যামেরায় ধরা পড়েছে। ‘গুন্ডাগিরি’র এই ভিডিয়ো সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়তেই তীব্র সমালোচনার ঝড় উঠেছে। সরগরম হয়ে উঠেছে মধ্যপ্রদেশের রাজ্য-রাজনীতিও। ইতিমধ্যেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে, জনপ্রতিনিধি হয়ে কী ভাবে এক জন সরকারি আধিকারিকের গায়ে হাত তোলার সাহস দেখালেন ওই বিজেপি বিধায়ক!

যদিও এই ঘটনার জন্য পৌরসভার আধিকারিককেই দায়ী করছেন বিজেপি নেতা হিতেশ বাজপেয়ী। তিনি বলেন, ‘‘ওই আধিকারিক ঘুষ চাইছিলেন। আকাশ তার প্রতিবাদ করেন। তখনই এই ঘটনা ঘটেছে।” পাশাপাশি, তিনি এটাও বলেন, ব্যাট দিয়ে মারার জন্য আকাশকে জেলে ভরতে পারেন। কিন্তু যে আধিকারিক ঘুষ চাইল তাঁর  কী শাস্তি হবে?”

অবশ্য আকাশের দাবি অন্য। আকাশ দাবি করেছেন , ওই আধিকারিক এক মহিলাকে গালিগালাজ করছিলেন। তাঁর হাত ধরে টানাটানিও করছিলেন। এই ঘটনা দেখার পর প্রচন্ড রাগ হয়েছিল। সেই রাগের বশেই এমন কাজ করে ফেলেছেন তিনি।

এ দিকে, সহকর্মীকে মারার ঘটনায় বিক্ষোভ দেখান পৌর নিগমের কর্মীরা। কাজ বন্ধ করে দেন। সেই সঙ্গে আকাশের শাস্তির দাবিও জানিয়েছেন তাঁরা ।

জানা গেছে, মধ্যপ্রদেশের কংগ্রেস সরকার বিধায়ক আকাশ বিজয়বর্গীয়কে গ্রেফতার করেছে । তাঁর বিরুদ্ধে ভারতীয় দন্ডবিধির ৩৫২, ২৯৪, ৫০৬, ৩২৩, ১৪৩ এবং ১৪৪ ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

 

 

 

 

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment