দেশ 

সোনিয়া –রাহুলই টার্গেট তা লোকসভা আবারও প্রমাণ করলেন মোদী ; দেশের সমস্যার দিকে নজর নেই কটাক্ষ শশী থারুর ; প্রধানমন্ত্রী এখনও ভোটের রেশ কাটিয়ে উঠতে পারেননি দাবি অধীরের

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : কংগ্রেসের লোকসভার দলনেতা অধীর চৌধুরি বলেছিলেন , গান্ধীদের তো চোর বলেন , কিন্ত ৬ বছর সময় পেয়ে কেন জেলে ঢোকাতে পারলেন না । প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী গতকাল সংসদে রাষ্ট্রপতি ভাষণের ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে জবাবী বক্তব্যে এ প্রসঙ্গ টেনে বলেন, ‘‘আজ তো ২৫ জুন।’’ বলে থেমে যান। পাশে বসা অধীরকে তখন কিছু জিজ্ঞাসা করছিলেন রাহুল। নজর এড়ায়নি প্রধানমন্ত্রীর। বললেন, ‘‘২৫ জুনের মানে কী, অনেকে তা জানেন না। আশপাশে জিজ্ঞাসা করতে হচ্ছে। ২৫ জুনের রাতে দেশের আত্মাকে দমন করে জরুরি অবস্থা জারি হয়েছিল। গোটা দেশকে জেলখানা করা হয়েছিল।এখন তো আমাদের দোষ দেওয়া হচ্ছে, কাউকে জেলে পাঠাচ্ছি না কেন? এটা জরুরি অবস্থা নয় যে, সরকার কাউকে জেলে পাঠাবে। কাজ আদালতের। বদলার ভাবনায় কাজ হওয়া উচিত নয়। আর দেশ আমাদের এত কিছু দিয়েছে, ভুল পথে যাওয়ার দরকারও নেই।’’ 

বিজেপি শিবিরে তখন অট্টহাসি। মোদী আরও একটু রসিকতা জুড়ে বললেন, ‘‘কেউ যদি জামিনে মুক্ত থাকেন, তো সেটা উপভোগ করুন।’’ ন্যাশনাল হেরাল্ড মামলায় সনিয়ারাহুল জামিন পেয়েছেন, সে কথাই স্মরণ করিয়ে দিলেন প্রধানমন্ত্রী। সে সঙ্গেউচ্চতানিয়েও ব্যঙ্গ করে বললেন, ‘‘কাল বলা হল, উচ্চতা কেউ কম করতে পারবে না। এমন ভুল আমরা করি না। আপনাদের উচ্চতা এতটাই যে জমিও দেখতে পান না, শিকড়ও উপড়ে গিয়েছে। আমরা আরও গভীরে গিয়ে শিকড় শক্ত করতে চাই। ফলে আপনারা আরও উঁচু, আরও উঁচু, আরও উঁচুতে যান।’’

রাহুলেরছুটিনিয়েও কটাক্ষ করেন মোদী। বলেন, ‘‘আমাদেরও মন করতে পারত ভোটে এত পরিশ্রমের পর একটু আরাম করতে। কিন্তু সরকার গঠনের মাত্র তিন সপ্তাহেই আমরা মানুষের জন্য অনেক কাজ করেছি।’’ মোদীর কথা শুনে শশী থারুর বলেন, ‘‘আমরা জমি দেখতে পাচ্ছি না, সেটি কি ঠিক? না কি দেশে নিরন্তর যা ঘটে চলছে, প্রধানমন্ত্রীই তা দেখছেন না বা দেখাতে চাইছেন না?’’ অধীর বলেন, ‘‘কৃষি সঙ্কট থেকে বেকারি, শিল্পের মন্দা থেকে শিশুমৃত্যুআমজনতার একটি বিষয় নিয়েও কথা বললেন না প্রধানমন্ত্রী। আমরা ভেবেছিলাম, দলগত রাজনীতির ঊর্ধ্বে উঠে রাষ্ট্রনায়কের মতো কথা বলবেন। কিন্তু তিনি এখনও ভোটেই আছেন।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment