কলকাতা 

মুখ্যমন্ত্রী হস্তক্ষেপ না করা পর্যন্ত জুনিয়র চিকিৎসকদের আন্দোলন চলবে , দাবিকে সমর্থন সিনিয়র চিকিৎসকদেরও

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : বুধবার জুনিয়র ডাক্তারদের সঙ্গে আন্দোলনে নামল সিনিয়র ডাক্তাররা আর এতেই সমগ্র বাংলার স্বাস্থ্য পরিষেবার থেমে গেল । কয়েক হাজার রোগী আজ চিকিৎসা থেকে বঞ্চিত হল । আর এই পরিস্থিতিতে থেকে বেরিয়ে আসতে হলে মুখ্যমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ জরুরি বলে সিনিয়র ডাক্তাররা মনে করছেন । এদিকে জুনিয়র ডাক্তাররাও দাবি করেছেন এ বিষয়ে মুখ্যমন্ত্রী যতক্ষণ না হস্তক্ষেপ করবেন ততক্ষণ তারা আন্দোলন চালিয়ে যাবেন । তাঁদের দাবি, ‘‘আমাদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতেই হবে। কী ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে, তা মুখ্যমন্ত্রীকে জানাতে হবে।’’

জুনিয়রদের এই বক্তব্যকে সমর্থন করেছেন সিনিয়র চিকিৎসকেরাও। বুধবার তাঁরা প্রতিবাদ জানিয়ে, এনআরএস থেকে কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ পর্যন্ত মিছিলও করেন। সেই প্রতিবাদ মিছিলে শহরের অন্যান্য মেডিক্যাল কলেজ থেকেও এ দিন জুনিয়র ডাক্তাররা এসেছিলেন। মিছিলে শহরের নামী চিকিৎসকদের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো। সেই তালিকায় ছিলেন সুভাষ সরকার। সম্প্রতি তিনি বাঁকুড়া লোকসভা কেন্দ্র থেকে জিতেছেন। সুভাষবাবু বলেন, “এটা কোনও হঠাৎ ঘটনা নয়। লাগাতার হয়ে আসছে। ডাক্তারদের উপর যেমন খুশি অত্যাচার চলবে না, মুখ্যমন্ত্রী এখানে আসুন। তিনি নিজে এসে বিবৃতি দিন। বলুন, এই ঘটনা আর ঘটবে না। যাঁরা ঘটাবে, তাঁরা শাস্তি পাবেন।’’ পাশাপাশি তাঁর প্রশ্ন,‘‘ক্লিনিক্যাল এস্টব্যালিসমেন্ট অ্যাক্ট-এর কী হল!”

সুভাষবাবুর সঙ্গে অনেক সিনিয়র চিকিৎসকই এক মত। এনআরএস হাসপাতালে কর্মরত সিনিয়র চিকিৎসক উৎপল বন্দ্যোপাধ্যায়যেমন বলেন, “স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য এসেছিলেন। কিন্তু যাঁরা আন্দোলন করছিলেন, তাঁদের সঙ্গে তিনি কথা বলেননি। ফিরিয়ে দিয়েছিলেন। আপনারা দেখতেই পাচ্ছেন এখানে কোনও কাজের পরিস্থিতি নেই। আমাদের এই  আন্দোলন চলবে।”

ডক্টরস্ ফোরামের ডাকে এ দিন রাজ্যজুড়ে সরকারি এবং বেসরকারি হাসপাতালে আউটডোর বন্ধ রাখার ডাক দেওয়া হয়েছিল। যার জেরে রাজ্যের স্বাস্থ্য পরিষেবা বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে। বিভিন্ন জেলার পাশাপাশি খাস কলকাতাতেও হাসপাতারগুলিতে আউটডোর বন্ধ ছিল।

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment