জেলা 

‘৪২ এ ৪২ টা আসন দখল করতে না পেরে অশান্ত ‘দিদি’র মন শান্ত করতে বাংলায় ‘প্রশান্ত’র আগমণ!!! : অধীর চৌধুরি

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক :  লোকসভা নির্বাচনে ভরাডুবির পর আগামী বিধানসভা নির্বাচনের দিকে তাকিয়ে এখন থেকে ঘর গোছাতে নেমে পড়েছে তৃণমূল । তৃণমূল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবার দলীয় কর্মীদের উপর আস্থা না রেখে সরাসরি কর্পোরেট দুনিয়ার প্রত আস্থা রাখলেন । তিনি ইলেকশন ম্যানেজমেন্টকে কাজে লাগিয়ে নির্বাচনী বৈতরণী পার হতে চাইছেন । তাই মোদী , নীতিশ কিশোর ও জগমোহন রেড্ডির নির্বাচনী কৌশল পরিচালনার অন্যতম পরিচালক প্রশান্ত কিশোরের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন মমতা । আর একেই কটাক্ষ করেছেন বহরমপুরের সাংসদ অধীর চৌধুরি ।

তিনি সোস্যাল মিডিয়া ফেসবুকে লিখেছেন , ৪২টি লোকসভা আসনের মধ্যে ৪২টি পাওয়ার স্বপ্ন ধুলিসাৎ । তাই দিদির ভরসা প্রশান্ত । শনিবার সকালে অধীর চৌধুরি তার ফেসবুকে প্রশান্তকে একটি  পোস্ট করেন ৷ সেখানেই রাজ্যের প্রাক্তন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরি লিখেছেন, ‘বিপদে পড়ে হিন্দু বলে ভগবান ভরসা, মুসলিম বলে এলাহী ভরসা, খ্রিস্টান বলে যীশু ভরসা, কংগ্রেস বলে জনগণ ভরসা, আর মমতা ব্যানার্জি বলেন প্রশান্ত ভরসা!’

লোকসভা ভোটের আগে বাংলায় ৪২ এ ৪২ এর ডাক দেন তৃণমূল নেত্রী৷ বাস্তবে, গেরুয়া ঝড়ে মমতার স্বপ্ন অঙ্কুরও ফোটাতে ব্যর্থ৷ নিজের দলেরই আসন সংখ্যা কমেছে জোড়াফুল শিবিরের৷ যা নিয়ে ফেসবুকে তৃণমূল নেত্রীকে টিপ্পনি কাটতে ছাড়েননি প্রদেশ কংগ্রেসের এই ডাকাবুকো নেতা৷ তিনি লেখেন, ‘৪২ এ ৪২ টা আসন দখল করতে না পেরে অশান্ত ‘দিদি’র মন শান্ত করতে বাংলায় ‘প্রশান্ত’র আগমণ!!!’

বৃহস্পতিবার বিকেলে নবান্নে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে প্রায় চল্লিশ মিনিট কথা হয় প্রচার কুশলী প্রশান্ত কিশোরের। আলোচনায় উপস্থিত ছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের সাসংদ তথা মমতার ভাইপো অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ও। তৃণমূল সূত্রে খবর, মমতা সঙ্গে প্রশান্ত কিশোরের আলোচনার বিষয়বস্থু ছিল লোকসভা ভোটে তৃণমূলের খারাপ ফল৷ প্রশান্ত কিশোর আসন ধরে ধরে তাঁর মতামত ব্যাখ্যা করেন মমতার কাছে৷

জানা যায় বাংলায় গেরুয়া বাহিনীকে ঠেকাতে তৃণমূলের হয়ে এবার কাজ করতে পারেন প্রশান্ত কিশোর৷ উল্লেখ্য, ভোট কুশলি প্রশান্ত ২০১৪ সালে মোদীর নির্বাচনী প্রচারে নজর কেড়েছিলেন ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বরে তিনি জেডিইউ-তে যোগ দেন এবং এক মাস পরে সে দলের জাতীয় সহ সভাপতি হন। ২০১৫ সালের বিহার বিধানসভা ভোটে নীতীশ কুমারের নির্বাচনী প্রচারের কৌশল রচনা করেছিলেন তিনি। এবার ওয়াইএসআর কংগ্রেসের চাণক্য রূপে কাজ করেও সাফল্য এনে দেন৷ আর তৃণমূল সুপ্রিমোর এই ‘ভরসা’ নিয়েই সমালোচনায় মুখর অধীর চৌধুরী৷

 

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment