কলকাতা 

চার ঘন্টা ধরে সাবেক পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারকে সারদা সহ অন্য চিটফান্ড মামলা নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ সিবিআইয়ের , সারদার লাল ডায়েরির খোঁজ নেই ; আবার রাজীব কুমারকে তলব করা হতে পারে

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : দীর্ঘ টাল বাহানার পর শুক্রবার সকালে সিবিআইয়ের কলকাতার সদর দফতর সল্টলেকের সিজিও কমপ্লেক্সে যান আইপিএস এবং সাবেক কলকাতার পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমার । সিবিআই সূত্রে খবর, সারদা চিটফান্ড মামলা ছাড়াও তাঁকে অন্যান্য চিটফান্ড মামলাতেও জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। ২০১৩ সালে চিটফান্ড কাণ্ড সামনে আসার পর রাজ্য সরকার বিশেষ তদন্তকারী দল(সিট)গঠন করে। এই দলে গুরুত্বপূর্ণ পদে ছিলেন রাজীব কুমার। সেই সময় রাজীব কুমারের কী ভূমিকা ছিল, সারদা কর্তা সুদীপ্ত সেন এবং দেবযানী মুখোপাধ্যায়কে গ্রেফতার করে কী কী নথি উদ্ধার হয়েছিল, তা জানতে চায় সিবিআই।

মূলত সারদা কর্তার লাল ডায়েরি ও পেন ড্রাইভের খোঁজে হন্যে হন্যে ঘুরছে সিবিআই কর্তারা ।এ বিষয়ে রাজীব কুমার কিছু জানেন কি না, তা জানতে চাওয়া হয়েছে বলে সিবিআই সূত্রে খবর। এ ছাড়াও সুদীপ্ত এবং দেবযানী যখন পলাতক ছিলেন, সেই সময় বিভিন্ন প্রভাবশালীদের সঙ্গে তাঁদের কথাবার্তা হত বলে মনে করছেন কেন্দ্রীয় গোয়েন্দারা। সেই কল রেকর্ডও পেতে চান তাঁরা। এ বিষয়ে রাজীব কুমারকে জিজ্ঞাসাবাদ করার হয়েছে বলে জানা গেছে।

এ দিন প্রায় ৪ ঘণ্টা জেরা করা হয় রাজীব কুমারকে। বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয় তাঁকে। রেকর্ড করা হয়েছে বয়ানও। সিবিআই সূত্রে খবর, ফের তাঁকে তলব করা হতে পারে।

এর আগে শিলংয়ে প্রায় ৪০ ঘণ্টা রাজীব কুমারকে জেরা করে সিবিআই। সূত্রের খবর, তার পরেও সারদা কাণ্ডে তাঁর জবাবে সন্তুষ্ট হতে পারেননি কেন্দ্রীয় গোয়েন্দারা। তাই ফের এ দিন তাঁকে তলব করা হয়।

উল্লেখ্য , সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে রাজীব কুমার গ্রেফতারি এড়াতে পারলেও, শিলংয়ে ৪০ ঘণ্টা তাঁকে জেরা করে সিবিআই। পরবর্তী ক্ষেত্রে রাজীব কুমার যে গ্রেফতারি এড়ানোর ‘রক্ষাকবচ’ পেয়েছিলেন, তা নাকচ করে দেয় সুপ্রিম কোর্ট। এর পরই রাজীব কুমারের গ্রেফতারির সম্ভাবনা নিয়ে বিভিন্ন মহলে জল্পনা শুরু হয়। এরই মধ্যে সিবিআই দ্বিতীয় দফায় জেরার জন্য তাঁকে নোটিস পাঠায়। সেই নোটিসের বিরোধিতা করে আদালতের দ্বারস্থ হন তিনি।

রাজীব কুমার হাইকোর্টের নির্দেশে আপাতত গ্রেফতারি এড়ানোর রক্ষাকবচ পেলেও, আদালত জানিয়ে দেয়, সিবিআই যখনই ডাকবে, তাঁকে হাজির হতে হবে এবং তাঁকে সিবিআইয়ের কাছে পাসপোর্ট জমা দিয়ে কলকাতাতেই থাকতে হবে। এই নির্দেশ মতো অবশেষে এ দিন রাজীব কুমার সিবিআইয়ের মুখোমুখি হলেন। এ দিন মদন মিত্রের প্রাক্তন আপ্ত সহায়ক বাপি করিমকেও জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

 

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment