দেশ 

দেশ থেকে মহাত্মা গান্ধীর সব মূর্তি ভেঙে ফেলা হোক সোস্যাল মিডিয়ায় মন্তব্য করে বিপাকে মহিলা আইএএস

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : সোস্যাল মিডিয়ায় খানিকটা দুঃখে অভিমানে মজা করে মাহাত্ম গান্ধী সম্পর্কে বিরূপ মন্তব্য করে ফেলেছেন এক মহিলা আইএএস । আর তা নিয়ে সরব হয়ে উঠেছে দেশ । বাপুজি ও নাথুরাম গডসেকে নিয়ে বিতর্কিত টুইট করে এখন রীতিমতো বিপদে পড়ে গিয়েছেন বৃহন্মুম্বই পুরসভার আধিকারিক মহিলা আইএএস অফিসার নিধি চৌধরি। চাকরি যায় যায় অবস্থা। শরদ পওয়ারের দল ন্যাশনালিস্ট কংগ্রেস পার্টি (এনসিপি) তাঁকে চাকরি থেকে বরখাস্ত বা নিদেনপক্ষে সাসপেন্ড করার দাবিতে সরব হয়েছে।

গত ১৭ মে ‘গডসে’ হ্যাশট্যাগ দিয়ে নিধি একটি টুইট করেন। তাতে তিনি মহাত্মা গাঁধীর ১৫০তম জন্মবার্ষিকী পালন নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। লেখেন, দেশের যেখানে যত গাঁধীমূর্তি রয়েছে, সেই সব ভেঙে দেওয়া হোক। অফিসে, ঘরের দেওয়ালে মহাত্মা গাঁধীর ছবি টাঙানো থাকলে, তা নামিয়ে ফেলা হোক। এমনকী, আমাদের টাকায় তাঁর যে মুখের ছবি এনগ্রেভ করা থাকে, তা তুলে ফেলা হোক।

ওই টুইটের বিরুদ্ধেই সরব হয়েছে এনসিপি। শরদ পওয়ারের দলের নেতা জিতেন্দ্র অওহাদ বলেছেন, ‘‘বরখাস্ত যদি নাও করা হয়, মহাত্মা গাঁধীকে নিয়ে ওই মানহানিকর টুইটের জন্য এখনই সাসপেন্ড করা হোক আইএএস অফিসার নিধি চৌধরিকে। উনি গাঁধীর আততায়ী নাথুরাম গডসেকে বড় করেছেন আর খাটো করেছেন জাতির জনককে। এটা মেনে নেওয়া যায় না।’’

অবশ্য আইএএস নিধি চৌধরি এ প্রসঙ্গে বরেছেন, ‘‘আমি মহাত্মা গাঁধীকে অপমান করতে চাইনি। ওঁরা বুঝতে চাইছেন না, আমি টুইটটি করেছিলাম ঠাট্টা করে। সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেকেই মহাত্মা গাঁধী সম্পর্কে নানা রকমের বিরূপ মন্তব্য করে চলেছেন। এই বছরের জানুয়ারি থেকে সেটা আরও বেড়েছে। সেই সব দেখেই আমি ওই টুইট করেছিলাম।’’

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment