দেশ 

কেন্দ্রে অ-বিজেপি সরকার গড়তে তৎপর সোনিয়া গান্ধী

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : ২০০৪ সালে বাজপেয়ী সরকারের বিরুদ্ধে জোট সরকার গঠনের জন্য প্রথম আহ্বান জানিয়েছিলেন সোনিয়া গান্ধী । তাঁর আহ্বানে সাড়া দিয়ে দেশের আঞ্চলিক ও জাতীয় দলগুলি কংগ্রেসের নেতৃত্বকে মেনে নিয়ে ইউপিএ সরকার -১ গঠন করতে সক্ষম হয়েছিল । ঠিক তাই ২০১৯ সালে ভোটের ফল বের হওয়ার আগেই মোদী বিরোধী জোট গঠন করার লক্ষ্যে উদ্যোগ নিলেন সোনিয়া গান্ধী । রাজনৈতিক মহল সূত্রে খবর, ইউপিএ-সভানেত্রী হিসেবে তিনি ২৩ মে লোকসভা ভোটের ফলের পরেই কে চন্দ্রশেখর রাও (কেসিআর), নবীন পট্টনায়ক, জগন্মোহন রেড্ডি-র মতো অ-কংগ্রেসি, অ-বিজেপি দলের নেতাদের বৈঠকে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন।

কংগ্রেস সূত্রে খবর, এ বার সনিয়ার নির্দেশে কংগ্রেসের শীর্ষনেতারাই আঞ্চলিক দলগুলির নেতাদের সঙ্গে কথা বলা শুরু করেছেন। যেমন মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী কমলনাথ নিজে ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীনের সঙ্গে কথা বলেছেন। তবে মমতার মতোই নবীন, কেসিআর বা জগন্মোহন ওই বৈঠকে যোগ দেবেন কি না, তার সবটাই নির্ভর করছে ভোটের ফলের উপরে। আজ এ নিয়ে প্রশ্নের উত্তরে কংগ্রেস মুখপাত্র অভিষেক মনু সিঙ্ঘভি বলেন, ‘‘এই সব কথাবার্তা লোকসভা ভোটের সময় হবে না তো, কখন হবে? কংগ্রেস কেন, সকলেই এই বিষয়ে কথাবার্তা বলছেন, আলোচনা করছেন। ভোটের ফলের পরে ২৪ ঘণ্টার একটা প্রক্রিয়া থাকে।’’

তেলঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রী কেসিআর কংগ্রেসকে চালকের আসনে বসতে দিতে রাজি নন। তাঁর ইচ্ছে, সরকার হোক আঞ্চলিক দলগুলির ফ্রন্টের নেতৃত্বে। কংগ্রেস তাকে সমর্থন করুক। এ নিয়ে কেরলের মুখ্যমন্ত্রী, সিপিএম নেতা পিনারাই বিজয়ন, ডিএমকে নেতা এম কে স্ট্যালিনের সঙ্গে বৈঠক করে তেমন সাড়া পাননি।

কংগ্রেসের নেতারা বলছেন, তেলঙ্গানায় মুসলমান, খ্রিস্টান ও অন্যান্য সংখ্যালঘু ভোটব্যাঙ্ক রয়েছে। তার জন্য তাঁর পক্ষে সরাসরি বিজেপির সঙ্গে হাত মেলানো কঠিন। তা ছাড়া সম্প্রতি বিজেপির সঙ্গে কেসিআরের সম্পর্ক ভাল যাচ্ছে না।

তবে একথা স্বীকার করতে হবে সোনিয়া গান্ধী অনেক আগেই বিজেপি বিরোধী জোট করতে চেয়েছিলেন । ইউপিএ বাইরে যেসব রাজনৈতিক দল আছে যারা বিজেপি বিরোধী বলে পরিচিত তাদের সকলকে এক মঞ্চে আনার চেষ্টা করেছিলেন সোনিয়া গান্ধী । কিন্ত রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও মায়াবতী দুইজনই ভোটের ফলের পরেই জোট গঠনের পক্ষপাতী । তাই ভোটের ফল ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে যাতে অবিজেপি দলগুলি জোটবদ্ধ হতে পারে সেদিকেই সজাগ দৃষ্টি রেখে এখন থেকেই কংগ্রেসের উদ্যোগ শুরু হয়েছে ।

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment