দেশ 

প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির মামলায় অভিযোগকারিনী সরে দাঁড়ানোয় বিচার প্রক্রিয়া প্রশ্নের মুখে

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক :  সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির মামলায় অভিযোগকারিনী ইতিমধ্যেই বিচারপ্রক্রিয়া নিয়ে প্রশ্ন তুলে সরে দাঁড়িয়েছেন৷ অভিযোগকারিনী-ই যদি সরে দাঁড়ান তাহলে বিচারপ্রক্রিয়া একতরফাভাবে কীভাবে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া সম্ভব? এই প্রশ্ন তুললেন দেশের শীর্ষ আদালতের দুই সিনিয়র বিচারপতি৷

দেশের শীর্ষ আদালতেরই প্রাক্তন কর্মচারী ওই মহিলা। তাঁর অভিযোগ, তদন্ত যে ভাবে হচ্ছে তাতে তিনি খুশি নন। তাঁর ধারণা, এই ভাবে তদন্ত হলে তিনি ন্যায়বিচার পাবেন না । তাই শুনানি থেকে সরে দাঁড়াতে তিনি বাধ্য হচ্ছেন। এরপরই বিচারপতি নরিম্যান ও বিচারপতি চন্দ্ররচূড় বিচারপক্রিয়ার যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন ৷

বিচারপতি এস এ বোবডে, বিচারপতি ইন্দু মলহোত্র ও বিচারপতি ইন্দিরা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বেঞ্চে এই মামলার শুনানি চলছে৷ জানা গেছে শুক্রবার এই তিন বিচারপতির সঙ্গে দেখা করেন সিনিয়র দুই বিচারপতি৷ সেখানেই তাঁরা জানান, অভিযোগকারিনীই যদি সরে দাঁড়ান শুনানি থেকে তবে সেই মামলার আর গ্রহণযোগ্যতা থাকে না৷

দেশের শীর্ষ আদালতের অন্যতম বর্ষীয়ান বিচারপতি নরিম্যান এই মামলার জন্য গঠিত বেঞ্চেকে পরামর্শ দিয়েছে যে তদন্তে সাহায্যের জন্য অভিযোগকারিনী মহিলাকে আইনজীবীর সাহায্য নেওয়ার অনুমতি দেওয়া হোক, নয়তো আদালত বন্ধু নিয়োগ করা হোক । এই মামলায় সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ ছিল তদন্ত প্রক্রিয়ায় অংশ নিতে অভিযোগকারিনী মহিলা আইনজীবীর বা অন্য কোনও আইনী সহায়তা পাবেন না৷

উল্লেখ্য দিন পনের আগে সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈয়ের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ করেন সুপ্রিম কোর্টের প্রাক্তন  মহিলা কর্মী। সুপ্রিম কোর্টের একাধিক বিচারপতির কাছে হলফনামা দিয়ে এই অভিযোগ করেন তিনি। যদিও শুনানিতে উপস্থিত হয়ে নিজের বিরুদ্ধে হওয়া সব অভিযোগ খারিজ করে দেন গগৈ।

শুনানিতে অংশ নিয়ে প্রধান বিচারপতি বলেন, “এই ধরণের অভিযোগের বিরুদ্ধে জবাব দেওয়ার জন্য আমি অত নীচে নামতে পারব না।” এমনকী তিনি অভিযোগ করেন, এটা পুরোটাই ষড়যন্ত্র। গগৈ বলেন, “এটা আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র। এর পিছনে আরও কোনও বড় শক্তি রয়েছে। তারা চাইছে দেশের প্রধান বিচারপতির ক্ষমতা কমিয়ে ফেলতে।” বিচার প্রক্রিয়ায় প্রভাব ফেলতেও এই অভিযোগ বলে দাবি করেন প্রদান বিতারপতি গগৈ৷

 

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment