জেলা 

বিষ্ণপুর লোকসভা জিততে মমতার ভরসা অনুব্রত ; দায়িত্ব পেয়েই অনুব্রতের বার্তা ,“নরেন্দ্র মোদী নন, দিদিই শেষ কথা।’’

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : চতুর্থ দফায় বীরভূমে ভোট শেষ হতে অনুব্রত মন্ডল বাঁকুড়ার বিষ্ণুপুর লোকসভার বিশেষ পর্যবেক্ষকের দায়িত্ব দায়িত্ব দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ।  মঙ্গলবার বীরভূম জেলা তৃণমূলের সভাপতি বলেন, ‘‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে এই দায়িত্ব পেয়েছি। শুক্রবার বিষ্ণুপুরে যাব। ওখানকার মানুষকে একটাই জিনিস বোঝাব, নরেন্দ্র মোদী নন, দিদিই শেষ কথা।’’

এ দিন দুপুরে তাঁর বাড়িতে গিয়ে দেখা গেল, জেলায় ভোট শেষ হওয়ার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই বিষ্ণুপুরের বিশেষ পর্যবেক্ষকের দায়িত্ব পেয়ে খোশমেজাজে রয়েছেন অনুব্রত।

নির্বাচনী প্রচারে বীরভূম ও বোলপুর কেন্দ্রে যেমন ভাবে সব কিছু সাজানো হয়েছিল, একই ভাবে বিষ্ণুপুরেও প্রচার, দলীয় বৈঠক, জনসভা, রোড-শো হবে। সোমবার বোলপুর ফিরে এসে আবার মঙ্গলবার চলে যাবেন বিষ্ণুপুরে। অনুব্রত আসছেন জেনে বিষ্ণুপুরের তৃণমূল প্রার্থী শ্যামল সাঁতরার হাসি চওড়া হয়েছে। তিনি বলেন, ‘‘কেষ্টদা আসছেন শুনে নিশ্চিন্ত হলাম। জয়ের ব্যবধান আরও বাড়ছে।’’

কোথায় বোলপুর, কোথায় বিষ্ণুপুর। এলাকা, রুচিগত পার্থক্য আছে। কী ভাবে সামলাবেন? অনুব্রতর জবাব, ‘‘বিষ্ণুপুর খুব ভাল জায়গা। দুটো জায়গার অনেক মিল। ওই জন্যই দিদির নির্দেশ পেয়েছি।’’ কী কী মিল আছে? অনুব্রত মনে করেন, দুটি জায়গাই ভ্রমণস্থান হিসেবে বিখ্যাত। দুটি এলাকায় রাঙামাটি রয়েছে। সঙ্গে টিপ্পনি, ‘‘তৃণমূল থেকে বিতাড়িত হয়ে বিজেপিতে যাওয়া সাংসদও রয়েছেন দুই জায়গাতেই।’’

বিশেষ পর্যবেক্ষকের দায়িত্ব নিয়ে অনুব্রত আসছেন শুনে সৌমিত্রর কটাক্ষ, ‘‘উনি নকুলদানা নিয়ে আসছেন! আমরা বিষ্ণুপুরের মোতিচুর তৈরি করে রেখেছি। হজম হবে তো?’’

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment