জেলা 

বহরমপুরের মানুষ “ বিশ্বাসঘাতক“দের সমর্থন দেবে না দাবি অধীরের ; জয় নিয়ে সংশয় নেই তার বিরোধীদেরও

শেয়ার করুন
  • 104
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বুলবুল চৌধুরি : অধীর চৌধুরি বহরমপুর তথা মুর্শিদাবাদের বেতাজ বাদশা । বরকত গণি খান চৌধুরির মতই জনপ্রিয় । তৃণমূল ক্ষমতায় আসার পর মুর্শিদাবাদে অধীর ঘনিষ্ট বলে পরিচিতরা অধিকাংশ কংগ্রেস ছেড়ে যোগ দিয়েছে তৃণমূলে । শুরু করেছিলেন হুমায়ুন কবীর , শেষ করলেন আবু তাহের । অথচ হুমায়ুন কবীরকে নেতা বানিয়েছিলেন অধীর চৌধুরি ।

মনে পড়ে অপূর্ব সরকারের কথা কান্দির দোদন্ডপ্রতাপ মহারাজা অতীশ সিনহাকে কংগ্রেস প্রার্থী হিসেবে মেনে নিতে পারেননি অধীর চৌধুরি তিনি নির্দল প্রার্থী হিসেবে অপূর্ব সরকারকে প্রার্থী করেছিলেন । জিতিয়ে এনে রাজ্য রাজনীতি তাঁকে পরিচিত করিয়েছিলেন । সেই অপূর্ব সরকারই এবার অধীরের বিরুদ্ধে প্রার্থী । পারবেন কী ? লড়াই-এর  ময়দানে টিকে থাকতে । নাম প্রকাশ না করার সত্ত্বে এক তৃণমূল কর্মী জানালেন এই সিটে তৃণমূলের পাওয়ার কিছু নেই তাই হয়তো নেত্রী কাঁটা দিয়ে কাঁটা তুললেন । এক কালের তাঁর অন্যতম শিষ্যকে অধীরের বিরুদ্ধে প্রার্থী করে লড়াইয়ের ময়দান ছেড়ে দিল তৃণমূল । তিনি আরও বললেন সেই জন্যই দেখবেন জেলার একাধিক তৃণমূলের বড় বড় নেতারা সবাই কংগ্রেসে যোগ দিচ্ছেন ।

আসল কথা হল মুর্শিদাবাদের বেতাজ বাদশা অধীরের সঙ্গে সাংগঠনিক দক্ষতায় কিংবা জনসংযোগে মুর্শিদাবাদের কোনো দলের নেতারা তুলনীয় হতে পারেন না । অধীর চৌধুরি সমগ্র মুর্শিদাবাদ জেলার কর্মীদের খবর নখ-দর্পনে রাখেন । তৃণমূল তো নয়ই, বামেরা যখন ক্ষমতায় ছিল তারাও অধীরের সঙ্গে সাংগঠনিক দক্ষতায় পেরে উঠতে পারত না ।

আর বামেরা এবার তাঁর বিরুদ্ধে প্রার্থী দিয়েছে তা সত্ত্বেও তিনিই জিতবেন বলে মনে করছে বহরমপুর বাসী । কারণ তাঁর শিষ্যরাই তার বিরুদ্ধে প্রার্থী হয়েছেন । আর বহরমপুরের মানুষ আর যাই করুক বিশ্বাসঘাতককে প্রশয় দেবে না । এটা এই প্রতিবেদকের বক্তব্য নয় , বলছেন খোদ এলাকার তৃণমূল কর্মীই ।

 

 


শেয়ার করুন
  • 104
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment