জেলা 

মহম্মদ সেলিমকে সমর্থন দিতে নারাজ জেলা কংগ্রেসের ; মানুষের সমর্থনেই জিতব দাবি সেলিমের

শেয়ার করুন
  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক :  যতকান্ড রায়গঞ্জকে ঘিরে । কে জিতবে রায়গঞ্জে তা নিয়ে এখন কারও আর মাথাব্যাথা নেই । ভোট এখনও অনেক দেরি । কিন্ত সিপিএম কংগ্রেসের আসন সমঝোতার জেরে এই কেন্দ্রে প্রার্থী হয়েছেন সিপিএমের মহম্মদ সেলিম । কিন্ত তিনি জোটের প্রার্থী হলেও জোটের সব ভোট পাবেন তো ? সেটাই এখন বড় প্রশ্ন হয়ে দেখা দিয়েছে ? ইতিমধ্যে জেলা কংগ্রেসের নেতারা সোস্যাল মিডিয়ায় এবং সংবাদ মাধ্যমকে বলেছেন , কংগ্রেস কর্মীরা তৃণমূল মতো সিপিএম প্রার্থীকে ভোট দেবে না । তাহলে কাকে ভোট দেবে কংগ্রেস কর্মী সেই প্রশ্নের উত্তরে নিরব রয়েছেন জেলা কংগ্রেসের নেতারা ।

২০১৬-র বিধানসভা, ২০১৭-য় রায়গঞ্জ পুরসভার ভোট এবং ২০১৮-র পঞ্চায়েত নির্বাচনে জোটবদ্ধ ভাবেই রায়গঞ্জে লড়েছে কংগ্রেস-বামফ্রন্ট। এ বারও হাইকম্যান্ডের নির্দেশে রায়গঞ্জে কোনো আলাদা প্রার্থী না-দেওয়ার সিদ্ধান্তই এখনও বহাল রেখেছে কংগ্রেস। কিন্তু এর পরেও উঠছে বিবিধ প্রশ্ন। সোস্যাল মিডিয়া থেকে জেলা কংগ্রেসের তাবড় নেতত্ব প্রকাশ্যে বলতে দ্বিধা করছেন না, কং-বাম আসন সমঝোতায় মহম্মদ সেলিমকে সিপিএম প্রার্থী করলেও তাঁদের ভোট পাবেন না।

এক দিকে রয়েছে ইতিহাসের নজির অন্য দিকে রাজনৈতিক পরিসংখ্যান- দুইয়ের মিশেলে কংগ্রেসের তরফে কার্যত সিপিএম প্রার্থীকে হারানোর হুমকি ঘুরে বেড়াচ্ছে রায়গঞ্জকে কেন্দ্র করে। ১৯৫১-য় প্রথম লোকসভা নির্বাচন থেকে শুরু করে ২০১৪ পর্যন্ত ১৬টি ভোটের ১১টিতেই জয় পেয়েছে কংগ্রেস। ২০১৪ সালের চতুর্মুখী লড়াইয়ে মাত্র ১৬৩৪ ভোটের ব্যবধানে কংগ্রেস প্রার্থী দীপা দাশমুন্সিকে পরাজিত করে রায়গঞ্জে সাংসদ নির্বাচিত হয়েছিলেন সেলিম। স্বাভাবিক ভাবেই সে বারের মতোই এ বারও যদি কংগ্রেসিরা সেলিমকে নিজের ভোট না দেন, তা হলে বাড়তি সুবিধা পেয়ে যেতে পারে বিজেপি।

অন্তত তেমন কথার অনুরণনই শোনা গিয়েছে উত্তর দিনাজপুর জেলা কংগ্রেস সভাপতি মোহিত সেনগুপ্তের কথায়। তিনি বলেছেন, “দীপা দাশমুন্সিকে দল প্রার্থী না করে সিপিএমকে রায়গঞ্জ আসনটি ছেড়ে দেওয়ায়  কংগ্রেস কর্মীরা ভীষণ ক্ষুব্ধ। স্বাভাবিক ভাবেই কংগ্রেসের ভোটাররা তৃণমূলের মতোই সিপিএম প্রার্থীকেও ভোট দেবেন না”। তা হলে তাঁরা কাকে ভোট দেবেন?

সেই প্রশ্নের উত্তর খোলসা করেননি মোহিতবাবু। তিনি শুধু বলেছেন, “মানুষ যাকে ভোট দেওয়ার, ঠিক সেই উপযুক্ত জায়গা খুঁজে নেবেন”। সেই উপযুক্ত জায়গা কি বিজেপি না কি অন্য কোনো ‘বিকল্পের’ সন্ধান চলছে ্স্থানীয় কংগ্রেসে?

সেলিম যে নিজেই কংগ্রেসিদের মনোভাব সম্পর্কে ওয়াকিবহাল, সেটা তাঁর কথাতেও স্পষ্ট হয়েছে। নিচু তলার কংগ্রেস কর্মীরা বামফ্রন্টে সঙ্গে যৌথ প্রচারে আগ্রহ দেখাচ্ছেন দাবি করেও তিনি জানিয়েছেন, ওঁদের দল, ওঁরাই সিদ্ধান্ত নিন ।


শেয়ার করুন
  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment