কলকাতা 

রাজ্যপাল ও শিক্ষামন্ত্রীর আশ্বাসে এমএসকে ও এসএসকে-র আন্দোলন প্রত্যাহার ; ১৫ দিনের মধ্যে সমস্যার হাল না হলে আবার আন্দোলনের পথেই যাবেন শিক্ষক-শিক্ষিকারা

শেয়ার করুন
  • 21
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : এস এস কে,এম এস কে ও এর শিক্ষক শিক্ষিকাদের অনির্দিষ্টকালের ধর্ণা কর্মসূচির ছয়দিন পর  রাজ্যপালের আশ্বাসে প্রত্যাহার করা হয় বৃহস্পতিবার ৷ রাজ্যপাল ও শিক্ষামন্ত্রীর আশ্বাসে আন্দোলনকারীরা তাদের আন্দোলন তুলে নেন৷ তবে ১৫ দিনের মধ্যে তাদের সমস্যার সমাধান না হলে ফের আন্দোলনে নামবেন শিক্ষক শিক্ষিকারা৷

বৃহস্পতিবার আন্দোলনকারীদের মধ্যে ছয়জন প্রতিনিধির একটি দল রাজভবনে যান৷ অন্যদিকে পাঁচজনের একটি প্রতিনিধি দল যান বিকাশ ভবনে৷ শিক্ষক ঐক্য মুক্ত মঞ্চের রাজ্য সম্পাদক মইদুল ইসলাম জানান, রাজ্যপাল আমাদের জানিয়েছেন,আগামীকালই  শিক্ষামন্ত্রীকে ডেকে তিনি আমাদের সমস্যার কথা ও সমাধানের বিষয় নিয়ে তার সঙ্গে আলোচনা করবেন৷

 

অন্যদিকে শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় আশ্বাস দিয়েছেন আগামী এক মাসের মধ্যে শিক্ষক শিক্ষিকা ও সুপারভাইজারদের সমস্যা সমাধান করবেন৷ তবে আমরা তাঁকে বলেছি, আগামী ১৫ দিনের মধ্যে সমস্যার সমাধান না হলে রাজ্যের সমস্ত শিশু শিক্ষা ও মাধ্যমিক শিক্ষা কেন্দ্রগুলো বন্ধ করে দিয়ে ফের আন্দোলনে শুরু হবে৷

বৃহস্পতিবার সল্টলেক বিধান মূর্তির সামনে থেকে প্রায় হাজার খানেক শিক্ষক শিক্ষিকা মিছিল করে বিকাশ ভবনের দিকে এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে৷ তখন পুলিশ ব্যারিকেড করে আটকায়৷ শুরু হয় পুলিশ শিক্ষক ধস্তাধস্তি৷ সেই সময় মহিলা পুলিশসহ বেশ কয়েকজন পুলিশ কর্মী আহত হন৷ শিক্ষক সংগঠনের দাবি তাদেরও পাঁচজন আহত হয়েছেন৷ এরপর আন্দোলনকারীরা রাস্তা অবরোধ করেন৷ পরে তা পুলিশ তুলে দেয়৷

 

ওয়েস্ট বেঙ্গল তূণমুল এস এস কে,এম এস কে টিচার্স অ্যান্ড এ এস ঐক্য মঞ্চের ডাকে বিভিন্ন দাবিতে ১ মার্চ থেকে শুরু হয়েছিল ধর্না৷ সেদিন থেকে সল্টলেকের বিধান মূর্তির পাদদেশে কয়েক শত শিক্ষক শিক্ষিকা ও সুপারভাইজাররা অনিদিষ্টকালের জন্য ধর্ণায় বসেছিলেন৷

যে সব দাবিতে এই ধর্ণা হয় তা হল , ২০১৩ সালের মন্ত্রীসভার সিদ্ধান্ত অনুসারে শিশু শিক্ষা কেন্দ্র, মাধ্যমিক শিক্ষা কেন্দ্র কে প্রাথমিক ও মধ্যশিক্ষা পর্ষদের অধীনে অনুমোদন দিতে হবে৷ এবং শিক্ষাদপ্তরকে পুরোপুরি দায়িত্ব তুলে নিতে হবে৷ সমগ্র শিক্ষা অভিযানের নিয়ম অনুযায়ী শিশু শিক্ষা, মাধ্যমিক শিক্ষা কেন্দ্রের শিক্ষক শিক্ষিকা ও সুপারভাইজারদের ২০১৮ সালের ১ এপ্রিল থেকে বেতন বৃদ্ধি কার্যকর করতে হবে এবং বেতন পরিকাঠামো চালু করতে হবে৷

 

শিক্ষক শিক্ষিকা ও সুপারভাইজারদের পেনশন ব্যবস্থা চালু করতে হবে৷ এস এস কে,এম এস গুলিকে নবম ও দশম শ্রেণী খোলার ব্যবস্থা করতে হবে৷ সমস্ত শিক্ষক শিক্ষিকাদের নিয়োগের অনুমোদন কর্মসংস্থান পরিচয়পত্র দিতে হবে৷ অবিলম্বে শূণ্যপদে নিয়োগের ব্যবস্থা করতে হবে৷

অনিদিষ্টকালের জন্য ধর্ণা কর্মসূচিতে বিভিন্ন দিনে ওই মঞ্চে আসেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ, প্রদেশ কংগ্রেসের রাজ্য সভাপতি সোমেন মিত্র, সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক বিমান বসু, সিপিএম নেতা সুজন চক্রবর্তী, বিকাশ রঞ্জন ভট্টাচার্য সহ প্রমুখ৷


শেয়ার করুন
  • 21
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment