জেলা 

প্রয়োজনে আরও বেশি আর্থিক বরাদ্দের দাবিতে আগামী দিনে ফের ধর্নায় বসতে পারেন অশোক

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : আরও বেশি অর্থের দাবিতে আবারও ধর্নায় বসতে পারেন বলে দাবি করেন শিলিগুড়ি পৌরনিগমের মেয়র অশোক ভট্টাচার্য।

গতকাল সাংবাদিক বৈঠক থেকেই শিলিগুড়ির জন্য একাধিক প্রকল্পের ঘোষণা করেন মেয়র। বলেন, “৫ মার্চ প্রায় ৪২ কোটি টাকা ব্যয়ে কয়েকটি নতুন প্রকল্পের শিলান্যাস করা হবে। সেজন্য পৌরনিগম কিছু অর্থ বরাদ্দ করেছে। কিছু অর্থ সাংসদ তহবিল থেকে দেওয়া হচ্ছে। বাকিটা রাজ্য সরকার দিয়েছে।”

কিন্তু, আপনাদের দাবি কি পুরোপুরি মিটেছে ? আপনাদের দাবি মতো টাকা পেয়েছেন ? সে প্রসঙ্গে শিলিগুড়ির মেয়র বলেন, “হাউজ়িং ফর অল প্রকল্পের দ্বিতীয় কিস্তির ৭ কোটি টাকা দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি চতুর্দশ অর্থ কমিশনের অধীনে ১৩ কোটি টাকা পেয়েছি। গ্রিন সিটি প্রকল্পের আওতায় ১০ কোটি টাকার অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। রাজ্য অর্থ কমিশন ৩০ কোটি টাকার ফাইল প্রসেস শুরু করেছে। এর বাইরেও অনেক টাকা বাকি রয়েছে।” রাজ্যের বিরুদ্ধে বৈষম্যমূলক আচরণের অভিযোগ তুলে তাঁর প্রশ্ন, “সবাই তো পাচ্ছে, তাহলে আমরা পাব না কেন?”

পাশাপাশি মেয়র বলেন, “সলিড ওয়েস্ট ম্যানেজমেন্ট নিয়ে রাজ্য সরকারের সঙ্গে ইতিবাচক আলোচনা হয়েছে। নতুন প্রকল্পের অধীনে ৪২ কোটি টাকা দিয়ে একাধিক উন্নয়নমূলক কাজ করা হবে। এর মধ্যে মহানন্দার পাড় সৌন্দর্যায়ন, পৌরনিগমের নতুন বিল্ডিং, নতুন ব্রিজ তৈরি হবে। কয়েকটি কাজের টেন্ডারও হয়ে গেছে।” কিন্তু তৃণমূলের দাবি, লোকসভা ভোটের আগে এটা রাজনৈতিক চমক ছাড়া আর কিছু নেই। সেই দাবিকে নস্যাৎ করে অশোকবাবু বলেন, “কাজ করার সদিচ্ছা থাকলে দাবি আদায় করে নেওয়া যায়। তা বিরোধীদের দেখিয়ে দিতে চাই। প্রতি পদে রাজ্য সরকারের তরফে বঞ্চনা করা হয়। তার প্রমাণও আমাদের কাছে রয়েছে। মানুষ সব জানে। তাই শিলিগুড়ির দাবিদাওয়া নিয়ে কলকাতা গেছিলাম। এগুলি ভোটের আগে চমক নয়। অর্থের জোগান নিশ্চিত করেই কাজে হাত দেওয়া হচ্ছে। সবগুলি প্রকল্প সম্পূর্ণ করে বিরোধীদের দেখিয়ে দেব।”

উল্লেখ্য , শিলিগুড়ি পৌরনিগমকে আর্থিকভাবে বঞ্চিত করা হচ্ছে এই অভিযোগে মেট্রো চ্যানেলে সামনে ধর্নায় বসেছিলেন মেয়র অশোক ভট্টাচার্য । ধর্নায় বসার পরের দিনেই সাত কোটি বরাদ্দ করে রাজ্য সরকার । এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “মন্ত্রী হাসতে হাসতে বললেন, অশোকদা আপনিও ধরনা দিচ্ছেন আবার টাকাও পেয়ে যাচ্ছেন। আমি বললাম তাহলে ধরনা দিলাম বলে টাকা দেওয়া হল। বেশি টাকার জন্য আরও বড় ধরনা দিতে হবে।”

 

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment