দেশ 

নির্বাচনকে অবাধ ও সকলের ভোটাধিকার নিশ্চিত করতে নির্বাচন কমিশন কী ব্যবস্থা নিচ্ছে জানতে চান ? ক্লিক করুন ।

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলার জনরব ডেস্ক : মার্চে প্রথম সপ্তাহের দিকে দেশের সাধারন নির্বাচন ঘোষণা করতে পারে সির্বাচন কমিশন । সেইমত সব কিছু প্রস্তুত রয়েছে । নির্বাচনকে অবাধ ও শান্তিপূর্ণ এবং সকল ভোটারের ভোটাধিকার প্রয়োগ যাতে যথাযথভাবে হয় সেদিকে সজাগ দৃষ্টি রাখবে নির্বাচন কমিশন । এজন্য বিশেষ ব্যবস্থাও নেওয়া হচ্ছে বলে জানা গেছে ।

কমিশন সূত্রে খবর, এ বারে ভোটার স্লিপে একাধিক বদল নিয়ে আসা হচ্ছে। সেই মর্মে নির্দেশিকাও জারি করেছে কমিশন, দেওয়া হয়েছে প্রশিক্ষণও। এক নজরে দেখে নেওয়া যাক কী কী পরিবর্তন আসছে ভোটার স্লিপে?

১. আকারে অনেকটাই বাড়ছে এ বারের ভোটার স্লিপ। নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, এ বারের ভোটার স্লিপের আকার হবে এ-ফোর সাইজের কাগজের অর্ধেক অর্থাৎ, অর্থাৎ ৮ইঞ্চি বাই ৬ইঞ্চি।

২. ভোটার স্লিপের কাগজে ছবি এবং তথ্যগুলি ছাপা হবে দু’দিকের অংশেই। স্থানীয় ভাষার পাশাপাশি থাকবে ইংরাজি হরফের লেখা।

৩. ভোটার স্লিপ ছাপার জন্য ব্যবহৃত হবে ভালো মানের কাগজ এবং মূদ্রণ ব্যবস্থা। যাতে স্লিপে লেখা তথ্য সহজবোধ্য হয়।

৪. ভোটার স্লিপে থাকবে জেলার ডিস্ট্রিক্ট ইলেকশন অফিসারের ফোন নম্বর এবং ওয়েবসাইট। ভোটার যাতে সরাসরি আধিকারিকের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন, সেই উদ্দেশেই এই নতুন সংযোজন।

৫. ভোটের দিন তো নয়-ই, ভোটের আগের দিনেও ভোটার স্লিপ বিলি করা যাবে না। স্লিপ বিলির কাজ সম্পূর্ণ হবে ভোটের পাঁচ দিন আগেই। বিলির সময় যথাযোগ্য প্রাপকের পরিবারের কোনো এক সদস্যের স্বাক্ষর সংগ্রহ করা হবে।

৬. বিলি না-হওয়া ভোটার স্লিপ বিএলও (বুথ লেভেল অফিসার) ফেরত পাঠাবেন সংশ্লিষ্ট ইআরও (ইলেক্টোরাল রেজিস্ট্রেশন অফিসার)-কে। ওই সমস্ত ভোটার স্লিপ মুখ বন্ধ খামে ঢুকিয়ে যথাযথ ভাবে গচ্ছিত রাখতে হবে। যার তালিকা রিটার্নিং অফিসারের কাছেও পাঠাতে হবে।

৭. ভোট দিতে এসে কেউ ভোটার স্লিপ না নিয়ে এলে তাঁকে সাহায্য করার জন্য ভোট কেন্দ্রে এক জন সর্বক্ষণের কর্মী রাখা হবে।

 


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সম্পর্কিত নিবন্ধ

Leave a Comment